Recent researches conducted by Institute of Bio-Resources and Sustainable Development(Imphal, Manipur) under Central Bio-technology Department of India showed definite evidence of the power of creating Cancerous tumour by Blue LED light in sexual glands of higher vertebrates like Man!

কেন্দ্রীয় জৈব প্রযুক্তি বিভাগের অধীন ইনস্টিটিউট অফ বায়ো-রিসোর্সেস এন্ড সাসটেনেবল ডেভেলপমেন্টে (ইম্ফল, মণিপুর) কিছু দিন পূর্বে পরিচালিত এক গবেষণায় প্রত্যক্ষ প্রমাণ পাওয়া গেছে যে, স্মার্ট ফোন বা ট্যাবের  নীল এল-ই-ডি আলো মানুষের মতো উচ্চতর মেরুদন্ডী প্রাণীদের যৌন গ্রন্থিতে ক্যানসার সৃষ্টি করতে পারে৷

                                      Zebrafish

                                               Ovarian Cancer

Nine researchers of the Institute of Bio-Resources and Sustainable Development(Imphal, Manipur) under Central Bio-technology Department of India led by Dr Asamanja Chattoraj (in current time HOD of Animal Science Dept. of Kazi Nazrul University, Asansol, West Bengal, India) conducted an experimental research on the effect of blue LED light on Zebrafish, a popular aquarium fish, for one year and a half to note to their dismay that a tumour gradually developing in the ovary of the fish with simultaneous change in the animal clock of the species. They also noted that melatonin, an accessory hormone assisting sleep was also decreasing in its body and two chemical markers related to tumour were increasing. Since there are remarkable physiological analogy between the fish and higher xertebrates, this outcome carries a serious hint as to blue LED might also prove dangerous for specially those who remain busy for many hours with smart phones or tabs ! Please be aware and take care of your health!

Please mind that changes on health made by blue light of LED are very slow and not quite perceptible. That does not mean that we should be careless about it. Joint Experiments conducted by Exeter University, UK and Barcelona Institute of Global Health about a year before that of Dr. ChattoKraj on the people residing indoor and exposed to the blue light of LED continuously for 3-4 months also showed the same result as that elicited by Dr. Chattoraj’s experiment of Zebra fish and LED light. More over, Madrid and Barcelona University of Spain jointly also conducted the same experiment on people residing outside in open space but under strongly-lit LED light to arrive at the same conclusion. All these prove that the matter is a serious one. Please practise these:

1)Reduce the use of smart phone, tab, PC and laptop.

2)There are blue light filters in many of gadgets above, please keep the ‘filter’ on.

3)Keep LED lights in side the room as less as possible.

4)Use Kapton over LED light, kapton tape has the power to absorb blue light. (look at picture) 

কেন্দ্রীয় জৈব প্রযুক্তি বিভাগের অধীন ইনস্টিটিউট অফ বায়ো-রিসোর্সেস এন্ড সাসটেনেবল ডেভেলপমেন্টে(ইম্ফল, মণিপুর) ড: অসমঞ্জ চট্টরাজের (বর্তমানে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের আসানসোলের কাজী নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণি বিজ্ঞান বিভাগের প্রধান) অধীনে নয় জন গবেষক প্রায় দেড় বছর ধরে জনপ্রিয় অকোয়ারিয়াম মাছ জেব্রাফিসের ওপর নীল এল-ই-ডি আলো ফেলে তার প্রভাব লক্ষ করেন৷ তাঁরা সবিস্ময়ে লক্ষ করেন যে, মাছটির জরায়ুতে ধীরে ধীরে টিউমার তৈরি হচ্ছে; তার শরীরে জৈব ঘড়ির পরিবর্তন হচ্ছে ৷ ঘুম সহায়ক হর্মোন মেলাটোনিন কমে যাচ্ছে ও টিউমার সম্বন্ধীয় দুটো রাসায়নিক মার্কারের পরিমাণ বেড়ে যাচ্ছে ৷ শারীরবৃত্তীয় ভাবে জেব্রাফিস ও মেরুদন্ডী প্রাণীদের মধ্যে মিল যথেষ্ট ৷ গবেষণালব্ধ এই ফল আমাদের ভবিষ্যৎ বিপদের ইঙ্গিতবাহী বিশেষত: যারা ঘন্টার পর ঘন্টা স্মার্ট ফোন বা ট্যাব নিয়ে ব্যস্ত থাকেন তাঁদের জন্যে ৷ সকলে সতর্ক থাকুন ও নিজের শরীরের যত্ন নিন৷

মনে রাখুন, এল-ই-ডির নীল আলোর প্রভাবে শারীরিক পরিবর্তন খুব ধীরে ঘটে ও বোঝাও কঠিন! কিন্তু তার মানে এই নয়, আমরা এ দিকে নজর দেবো না ! ড: চট্টরাজের পরীক্ষার প্রায় বছরখানেক আগে ইংল্যান্ডের এক্সেটার বিশ্ববিদ্যালয় ও বার্সিলোনার ইন্সটিটিউট অব গ্লোবাল হেল্থ দুই সংস্থান ঘরে বসবাসকারী মানুষের ওপর এল-ই-ডির নীল আলোর প্রভাব বেশ লম্বা সময় ধরে পরীক্ষা করে ড: চট্টরাজের পরীক্ষার একই পর্যবেক্ষণ ও ফলাফলে পৌঁছেছিলেন ৷ মাদ্রিদ ও বার্সিলোনা বিশ্ববিদ্যালয় যৌথভাবে খোলা জায়গায় কিন্তু জোরালো এল-ই-ডি আলোর নিচে বসবাসকারী মানুষদের ওপরও ঐ একই পরীক্ষা চালিয়ে একই পর্যবেক্ষণ ও সিদ্ধান্তে পৌঁছেছিলেন৷ এতে প্রমাণ হয় যে, ব্যাপারটা যথেষ্ট গম্ভীর! নিচের ব্যবস্থা গ্রহণ করুন:

১)স্মার্ট ফোন, ট্যাব, পিসি, ল্যাপটপের ব্যবহার কমান ৷ এমন কি এল-ই-ডি টিভি স্ক্রিন থেকে দূরে থাকুন৷

২)অনেক ডিভাইসে নীল আলো ফিল্টার আছে৷ সে গুলো কাজে লাগান৷

৩)ঘরে এল-ই-ডি লাইটের সংখ্যা কমান৷

৪)এল-ই-ডি লাইটের ওপর ক্যাপটন টেপ লাগালে নীল আলো শোষণ হয়ে যায়৷ (উপরে ছবি দেওয়া আছে)